১০ জানুয়ারী, ২০২৩

১৪৪ ধারা জারি কী? কে জারি করে? কেন জারি করে?

 

১৪৪ ধারা   জারি কী?

ফৌজদারি কার্যবিধি ১৮৯৮ (CrPC) এর ১৪৪ ধারার বিধান বলে  জেলা ম্যািজস্ট্রেট বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত অন্য যে কোন নির্বাহী ম্যািজস্ট্রট মেট্রোপলিটন এলাকার বাইরে বাংলাদেশের  যে কোন স্থানে পাঁচ বা তার বেশি লোকের জমায়েত নিষিদ্ধ করার আদেশ দেওয়ার ক্ষমতা দেয়৷  ১৪৪ ধারার বিভিন্ন বিধানগুলি দাঙ্গায় জড়িত থাকার অভিযোগে 'বেআইনি সমাবেশ' হিসাবে আখ্যায়িত।

কেন ১৪৪ ধারা প্রয়োজন?

১৪৪ ধারা একটি প্রদত্ত অঞ্চলে জরুরী পরিস্থিতিতে বা উপদ্রবের ক্ষেত্রে বা এমন কিছু ঘটনার জন্য অনুভূত বিপদের ক্ষেত্রে আরোপ করা হয় যা একটি অস্থির পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে বা মানুষের জীবন বা সম্পত্তির ক্ষতি করতে পারে।  সাধারণভাবে আমরা বলতে পারি ১৪৪ ধারা জনসমাগম নিষিদ্ধ করে। অতীতে, ১৪৪ ধারা ব্যবহার করা হতো যখন কিছু প্রতিবাদ বা দাঙ্গার বিস্ফোরণ রোধ করার জন্য কিছু বিধিনিষেধ কার্যকর করার প্রয়োজন ছিল যা অশান্তি সৃষ্টি করতে পারে।  প্রদত্ত এখতিয়ারের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে ১৪৪ ধারার অধীনে আদেশ জারি করার ক্ষমতা প্রদান করা হয়েছে যখন আসন্ন জরুরি পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়।

১৪৪ ধারা এর বিধানঃ

১৪৪ ধারায় প্রদত্ত এখতিয়ারে যেখানে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে সেখানে যে কোনো ধরণের অস্ত্র পরিচালনা বা পরিবহনের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।  এই বিষয়ে কোন আদেশ লঙ্ঘনের ক্ষেত্রে, যে কোন আকারে যারা এটি করছেন তাদের আটক করা যেতে পারে। এই ধারায় জারি করা আদেশ অনুযায়ী জনসাধারণ কোনো আন্দোলন করতে পারবে না।  প্রদত্ত এলাকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে।  ১৪৪ ধারা বলবৎ থাকাকালীন সময়ে এলাকায় কোনো জনসভা করা বা সমাবেশ করা নিষিদ্ধ। যে এলাকায়  ১৪৪ ধারা বলবৎ হয়, সেখানে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলিকে বেআইনি সমাবেশ ভেঙ্গে দিতে বাধা দেওয়া শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে বিবেচিত হয়।  কোনো উদ্ভূত প্রয়োজনের ক্ষেত্রে, ১৪৪ ধারা  কর্তৃপক্ষকে এই অঞ্চলে যে কোন কিছু (যেমন ইন্টারনেট অ্যাক্সেস) বন্ধ করার ক্ষমতা দেয়। ১৪৪ ধারা  এর চূড়ান্ত উদ্দেশ্য হল সেইসব এলাকায় শান্তি ও শৃঙ্খলা বজায় রাখা যেখানে নিয়মিত জীবন যাপন ব্যাহত  হতে পারে।  CrPC এর ১৪৪ ধারা কিছু ইভেন্ট পরিচালনা নিষিদ্ধ করে যা সাধারণত অনুমোদিত।

১৪৪ ধারায় আদেশের সময়কালঃ

১৪৪ ধারা বাস্তবায়নের জন্য নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসারে, কোন আদেশ ২ মাসের বেশি সময়ের জন্য বলবৎ থাকতে পারে না কিন্তু  সরকার যথাযথ মনে করলে ২ মাসের বেশি বলবৎ রাখতে পারে।


শেয়ার করুন

0 comments: